• ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১২ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতেএম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটি প্রোগ্রামের উদ্বোধন

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত ডিসেম্বর ৯, ২০২৩
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতেএম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটি প্রোগ্রামের উদ্বোধন

শিক্ষাগত উৎকর্ষ এবং ডিজিটাল সমাজের বিকশিত চাহিদা মেটানোর অঙ্গীকারের প্রতীক হিসেবে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে আগামী জানুয়ারির স্প্রিং সেমিস্টার ২০২৪ থেকে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিাগের অধীনে এম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটি প্রোগ্রাম চালু করা হচ্ছে। আজ ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ মিরপুর রোডের ড্যাফোডিল টাওয়ারের ৭১ মিলনায়তনে এক ‘মিট দ্যা প্রেসৎ অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়। মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্তকর্তা ড. মোহাম্মদ নুরুজ্জামান। মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুিক্ত অনুষদেও ডীন প্রফেসর ড. সৈয়দ আখতার হোসেন। মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ^বিদ্যালয়ের সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ড. ইমরান মাহমুদ, এম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটির প্রোগ্রমের পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক মোঃ মারুফ হাসান এবং সহকারি অধ্যাপক ড. শাপলা খাতুন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপনকালে প্রফেসর ড. সৈয়দ আখতার হোসেন বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের কেন্দ্রবিন্দু এবং সাইবার নিরাপত্তা ছাড়া জীবন ঝুঁকিপূর্ণ। সামাজিক মাধ্যম থেকে অনলাইন ব্যাংকিং পর্যন্ত ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের ওপর আমাদের নির্ভরশীলতা, সাইবার স্পেসে দুর্বলতার দ্বারকেও খুলে দিয়েছে। ইন্টারনেট এবং মোবাইলের দ্রæত বিকাশ, সাইবার নিরাপত্তাকে কেবল ব্যক্তি এবং ব্যবসায়ের জন্য নয়, পুরো জাতির জন্য প্রধান উদ্বেগের কারণ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। বাংলাদেশ যখন স্মার্ট জাতি হওয়ার দিকে অগ্রসর হচ্ছে, তখন সাইবার সিকিউরিটির ভূমিকা আরও বেশি প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠেছে।
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই যুগে, সাইবার সিকিউরিটির পরিদৃশ্য দ্রæত পরিবর্তন হচ্ছে। সাইবার হুমকিগুলির বর্ধিত জটিলতা, নতুন চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে, যা দক্ষ সাইবার সিকিউরিটি পেশাদারদের ঘাটতিও প্রকাশ করেছে। এই ঘাটতি একটি বৈশ্বিক সমস্যা, যা বিশ্বের বিভিন্ন জাতি ও শিল্পে প্রভাব ফেলেছে। বাংলাদেশে, আমরা এমন বিশেষজ্ঞদের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছি, যারা এই ডিজিটাল ক্ষেত্রের জটিলতাগুলো নেভিগেট করতে পারে এবং আমাদের অবকাঠামো এবং তথ্যগুলি সাইবার হুমকিগুলি থেকে সুরক্ষিত রাখতে সক্ষম ।
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সবসময় কর্মক্ষেত্রের গতিশীল চাহিদা পূরণের জন্য উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল শিক্ষামূলক সমাধান প্রদানের অগ্রণী ভূমিকা রেখে এসেছে। আমাদের সাইবার সিকিউরিটি বিষয়ে এম.এস.সি. প্রোগ্রামটি ডিজিটাল নিরাপত্তা ক্ষেত্রে দক্ষতার ঘাটতি দূর করার একটি কৌশলগত উদ্যোগ। এই প্রোগ্রামটি সাইবারসিকিউরিটি সেক্টরের বর্তমান এবং ভবিষ্যতের চাহিদা অনুযায়ী সুনিপুণভাবে ডিজাইন করা হয়েছে, নিশ্চিত করা হয়েছে যে আমাদের স্নাতকরা শুধু তাত্ত্বিক ধারণাতেই নয়, বাস্তবিক প্রয়োগেও পারদর্শী হবেন।
সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ড. ইমরান মাহমুদ বলেন, এম.এস.সি. সাইবার সিকিউরিটি একটি ব্যাপক প্রোগ্রাম যা তাত্ত্বিক জ্ঞান এবং ব্যাবহারিক দক্ষতা একত্রিত করে। মূল ফোকাসের এলাকাগুলি অন্তর্ভুক্ত ক্রিপ্টোগ্রাফি, নেটওয়ার্ক ও সিস্টেম নিরাপত্তা, ডিজিটাল ফরেনসিক, এথিক্যাল হ্যাকিং এবং পেনেট্রেশন টেস্টিং, তথ্য নিরাপত্তা ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, এবং তথ্য সিস্টেম অডিট এবং নিশ্চিতকরণ। এই বৈচিত্র্যময় পাঠ্যক্রম নিশ্চিত করে যে, আমাদের ছাত্রছাত্রীরা সাইবারসিকিউরিটি বিশ্বের বহুমুখী চ্যালেঞ্জগুলি সামাল দিতে প্রস্তুত।
এম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটির প্রোগ্রাম পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক মোঃ মারুফ হাসান বলেন, এই প্রোগ্রামে আমরা, আইটি এবং নন-আইটি পটভূমির ছাত্রছাত্রীদের স্বাগত জানাই, যাতে করে তারা সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ে নিজেদেরকে তৈরী করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশের কাজে আসতে পারে। কোর্সগুলি ইন্ডাস্ট্রি পেশাদার এবং বিশেষজ্ঞ অনুষদ সদস্যদের দ্বারা পরিচালিত হয়, এটি নিশ্চিত করে যে, প্রদত্ত শিক্ষা বর্তমান এবং শিল্প-সংশ্লিষ্ট। আমরা বিশেষাযয়িত সাইবারসিকিউরিটি ল্যাব এবং ব্যাবহারিক ল্যাব কোর্স অফার করা হয়।
এই প্রোগ্রামটি বিভিন্ন শৈক্ষিক পটভূমির জন্য কাঠামোগতভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে। আইটি পটভূমির ছাত্রছাত্রীদের জন্য প্রোগ্রামের মেয়াদ ১.৫ বছর (৩ সেমিস্টার) এবং নন-আইটি পটভূমির ছাত্রছাত্রীদের জন্য মেয়াদ বাড়িয়ে ২ বছর (৪ সেমিস্টার) করা হয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের থিসিস ভিত্তিক এবং প্রজেক্ট ভিত্তিক মাস্টার্স প্রোগ্রাম বেছে নেওয়ার সুবিধা রয়েছে। এই নমনীয়তা তাদের ক্যারিয়ার লক্ষ্য এবং আগ্রহ অনুসারে শিক্ষার অভিজ্ঞতা কাস্টমাইজ করার সুযোগ দেয়। আইটি পটভূমির ছাত্রদের জন্য প্রোগ্রামের খরচ থিসিস ভিত্তিক বিকল্পের জন্য ১,৪৫,৩৭৫ টাকা থেকে প্রজেক্ট ভিত্তিক বিকল্পের জন্য ১,৪৮,৩৭৫ টাকা পর্যন্ত। নন-আইটি পটভূমির ছাত্রছাত্রীদের জন্য খরচ হল, থিসিস ভিত্তিক প্রোগ্রামের জন্য ২,২৩,৭৫০ টাকা এবং প্রজেক্ট ভিত্তিক প্রোগ্রামের জন্য ২,২৬,৭৫০ টাকা ।
প্রোগ্রাম সমাপ্তির পর, স্নাতকরা সাইবার নিরাপত্তা ডোমেইনে বিভিন্ন ভূমিকায় প্রস্তুত হবেন, যেমন: সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষক, এথিক্যাল হ্যাকার, আইটি নিরাপত্তা পরামর্শদাতা, ইত্যাদি। এই ভূমিকাগুলি আজকের ডিজিটাল ইকোসিস্টেমের জন্য অত্যন্ত জরুরি, এবং আমাদের বিশ্বাস আমাদের স্নাতকরা ডিজিটাল অবকাঠামো এবং তথ্য সুরক্ষায় সবার অগ্রভাগে থাকবেন। প্রোগ্রামের খরচ শিক্ষার সর্বোচ্চ মান বজায় রেখে সাধ্যের মধ্যে রাখা হয়েছে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মোহাম্মদ নুরুজ্জামান বলেন, আমাদের এম.এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটি প্রোগ্রাম শুধু একটি শৈক্ষিক প্রস্তাব নয়; এটি নিরাপদ এবং প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার প্রতি একটি অঙ্গীকার। ছাত্রছাত্রীদের সাইবার নিরাপত্তায় দক্ষতা এবং জ্ঞান দিয়ে সজ্জিত করে, আমরা স্মার্ট বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি অর্জনে অবদান রাখবো – একটি দেশ যা সংকটপ্রতিরোধী, নিরাপদ, এবং প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের অগ্রগামী । এই প্রোগ্রামের লক্ষ্য হল এমন পেশাদারদের তৈরি করা যারা দেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা ল্যান্ডস্কেপ গঠনে ভূমিকা রাখবেন, আমাদের ডিজিটাল অবকাঠামোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন।
তিনি আরো বলেন, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সাইবার সিকিউরিটির এম.এস.সি. প্রোগ্রামের সূচনা বাংলাদেশ এবং তার বাইরে যোগ্য সাইবার নিরাপত্তা পেশাদারদের জরুরী চাহিদা মেটানোর দিকে এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। আমরা আমাদের ছাত্রছাত্রীদের বিশ্বমানের শিক্ষা প্রদানে বদ্ধপরিকর, যাতে তারা তাত্ত্বিক জ্ঞান এবং ব্যবহারিক দক্ষতার সমন্বয়ে আধুনিক ডিজিটাল বিশ্বের চ্যালেঞ্জগুলোর মোকাবেলা করতে প্রস্তুত হতে পারে। এই প্রোগ্রাম শুধুমাত্র একটি শিক্ষাগত উদ্যোগ নয়; এটি আমাদের জাতির ভবিষ্যৎ এবং আমাদের ডিজিটাল বিশ্বের নিরাপত্তার প্রতি একটি প্রতিশ্রæতি। আমরা বাংলাদেশের জন্য একটি নিরাপদ, স্মার্ট এবং ঝুঁকিবিহীন ডিজিটাল ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার প্রত্যাশা করি।
ক্যাপশনঃ ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিাগের অধীনে এম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটি প্রোগ্রাম চালু উপলক্ষে আয়োজিত মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্তকর্তা ড. মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুিক্ত অনুষদেও ডীন প্রফেসর ড. সৈয়দ আকতার হোসেন, সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ড. ইমরান মাহমুদ, এম. এসসি. ইন সাইবার সিকিউরিটির প্রোগ্রমের পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক মোঃ মারুফ হাসান এবং সহকারি অধ্যাপক ড. শাপলা খাতুন।

July 2024
S S M T W T F
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031