• ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১২ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

বড়লেখায় বুলেট রাজা ও রাহাত আটক, সহযোগিদের খুঁজে পুলিশ

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৯
বড়লেখায় বুলেট রাজা ও রাহাত আটক, সহযোগিদের খুঁজে পুলিশ

এ.জে লাভলু :: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় গাড়ির ব্যাটারি ও যন্ত্রাংশ চুরির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় চোরচক্রের মূল হোতা ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজা (২৫) ও তার সহযোগি ইমদাদুর রহমান রাহাতকে (২২) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। এর আগে গত ৩১ আগস্ট তাদের স্থানীয়দের সহায়তায় আটক করে পুলিশ। পরদিন ১ সেপ্টেম্বর তাদের বিরুদ্ধে থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়। ওই মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, এবার বুলেট রাজার সহযোগি ও মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে। এছাড়া তাদের দুজনকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইতিমধ্যে আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

থানা পুলিশ সূত্র জানিয়েছে,  ট্রাকের ব্যাটারি চুরির ঘটনায় গত ১ সেপ্টেম্বর রাতে উপজেলার গ্রামতলা এলাকার ছাদিক আহমদ বাদী হয়ে ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজাকে প্রধান আসামি ও ৬-৭ জন নামোল্লেখ করে থানায় একটি মামলা (নং-০১) করেন।

মামলার এজাহারে ছাদিক আহমদ উল্লেখ করেন, তাঁর দুটি ট্রাক আছে। ট্রাক দুটি জনৈক সুনাম উদ্দিন ও মামুন আহমদ চালান। প্রতিদিনের মতো গত ২৯ আগস্ট ট্রাক দুটি সারাদিন চালানো হয়। এদিন রাত আটটায় ট্রাক দুটি বড়লেখা পৌরশহরের উত্তরবাজার ট্রাকস্ট্যান্ডে রেখে চালকরা বাড়িতে চলে যান। পরদিন ভোরে ট্রাকচালক মামুন আহমদ গাড়ি নিতে এসে দেখেন ট্রাকের ব্যাটারি নেই। চালক মামুন বিষয়টি তাকে ফোনে জানান। খবর পেয়ে তিনি এসে দেখেন, দুটি ট্রাকের ৩টি ব্যাটারি ও ১টি জ্যাক অজ্ঞাত চোরেরা নিয়ে গেছে। পরে তিনি জানতে পারেন একইদিন (২৯ আগস্ট) রাতে মামলার ১ নম্বর সাক্ষী আব্দুল হামিদের ব্যাটারি থেকে ১টি ব্যাটারি, ২ নম্বর সাক্ষী জব্বার মিয়ার ট্রাক ও ট্রাক্টর থেকে ২টি ব্যাটারি, ৩ নম্বর সাক্ষী মমিন মিয়ার ট্রাক ও ট্রাক্টর থেকে ২টি ব্যাটারি ও ৪ নম্বর সাক্ষী ফারুক মিয়ার ট্রাক থেকে ১টি ব্যাটারি চুরি হয়।

পরে ছাদিক আহমদ ও মামলার সাক্ষীরা জানতে পারেন, গত ৩০ আগস্ট রাত দশটায় এলাকার চিহ্নিত চোর ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজা ও তার সহযোগিরা চান্দগ্রাম রোডের পাশে রাখা জনৈক ময়না মিয়ার বাস থেকে ব্যাটারি চুরির চেষ্টাকালে এলাকার লোকজন ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। বিষয়টি জানতে পেরে তিনি ও মামলার সাক্ষীরা গত ৩১ আগস্ট গ্রামতলা বাজার থেকে তাকে আটক করেন। পরে বুলেট রাজা সবার গাড়ি থেকে ব্যাটারি চুরির কথা স্বীকার করেন। এসময় উত্তেজিত জনতা তাকে মারধর করেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাকে আটক করে এবং তার বাড়ি থেকে ছাদিক আহমদের গাড়ি থেকে চুরিকৃত তিনটি ব্যাটারির মধ্যে দুটি উদ্ধার করা হয়। পরে বুলেট রাজার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার সহযোগি ইমদাদুর রহমান রাহাতকে স্থানীয়দের সহায়তায় আটক করে পুলিশ।

এদিকে ১ সেপ্টেম্বর রাতে অটোরিকশা থেকে ব্যাটারি চুরির ঘটনায় আরো একটি মামলা (নং-০২) করেন উপজেলার জফরপুর গ্রামের অটোরিকশাচালক ইসলাম উদ্দিন। মামলায় ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজাকে ১ নম্বর ও ইমদাদুর রহমান রাহাতকে ২ নম্বর আসামি করে আরও ৬-৭ জন নামোল্লেখ করা হয়।

মামলার এজাহারে তিনি উল্লেখ করেন, গত ২৩ জুন রাতে তিনি তার অটোরিকশা সাতকরাকান্দি বাজারে রেখে বাড়িতে চলে যান। পরদিন গাড়ি নিতে এসে দেখেন তারসহ এজাহারে বর্ণিত আরও ১১ জন সাক্ষীর সিএনজি অটোরিকশা থেকে ১২টি ব্যাটারি চোরেরা নিয়ে গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজা উপজেলার দক্ষিণ গ্রামতলা এলাকার আব্দুস শুক্কুরের ছেলে এবং ইমদাদুর রহমান রাহাত সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আতাউর রহমানের ছেলে।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বড়লেখা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুব্রত কুমার দাস মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় বলেন, ‘ছাইদ আহমদ ওরফে বুলেট রাজা চোরচক্রের অন্যতম হোতা। সম্প্রতি একটি বাস থেকে ব্যাটারি চুরির সময় স্থানীয় লোকজন তাকে দেখে ফেলেন। পরে তারা তাকে ধাওয়া করলে সে পালিয়ে যায়। পরদিন তাকে গ্রামতলা বাজার থেকে স্থানীয়রা আটক করেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় আসে। এসময় তার কাছ থেকে চুরি করা ২টি ব্যাটারি উদ্ধার করা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘তাকে জিজ্ঞাসাবাদে সে তার সঙ্গে কারা কারা জড়িত তাদের নাম আমাদের কাছে বলেছে। সে কতটি গাড়ি থেকে ব্যাটারি চুরি করে সেসব তথ্য দিয়েছে। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আমরা তার সহযোগি ইমদাদুর রহমান রাহাতকে গ্রেফতার করেছি। তাদের দুজনের বিরুদ্ধে থানায় দুটি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে দুটি মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে ছাইদ আহমদ বুলেটকে। দুটি মামলায় আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। বাকি আসামিদের খুঁজে আমরা প্রতিদিনই বিভিন্নস্থানে অভিযান চালাচ্ছি। তদন্তের স্বার্থে আপাতত তাদের নাম বলছি না।’

সুব্রত কুমার দাস বলেন, ‘বুলেট রাজা কখন-কিভাবে গাড়ি থেকে ব্যাটারি চুরি করতো, তা কোথায় নিয়ে বিক্রি করতো, জিজ্ঞাসাবাদে সে এসব কথা আমাদের কাছে বলেছে। বুলেট ও রাহাত দুজনেই এখন কারাগারে আছে। তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসবাদের জন্য আদালতে আবেদন করেছি।’

হাকালুকিডটনেট/কাওসার/৩সেপ্টেম্বর

July 2024
S S M T W T F
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031