• ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার অসহায় ও দরিদ্র ব্যক্তিদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদান করছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত নভেম্বর ১৮, ২০২৩
মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার অসহায় ও দরিদ্র ব্যক্তিদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদান করছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন

মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার যে কোনো ব্যক্তিকে প্রয়োজনীয় আইনগত সহায়তা প্রদানসহ মানবাধিকার পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন বদ্ধপরিকর। কমিশন লক্ষ্য করেছে যে, মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিভিন্ন ঘটনায় সহায়-সম্বলহীন এবং অসহায় ভুক্তভোগীগণ বিশেষ করে আর্থসামাজিক কারণে মামলা করতে অসমর্থ সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী মামলা লড়তে অসমর্থ হওয়ায় ন্যায়বিচার প্রাপ্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়। ভুক্তভোগীদের বিচার প্রাপ্তির পথ সহজ ও সুগম করার লক্ষ্যে কমিশন সারা দেশের ৬৪ টি জেলার প্রায় ২৫০ জন বিজ্ঞ আইনজীবীদের সমন্বয়ে একটি প্যানেল গঠন করেছে। কমিশনের প্যানেল আইনজীবীগণ কমিশনের পক্ষে মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার অসহায় ও দরিদ্র ভুক্তভোগীদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদান করছে এবং তাদেরকে ন্যায়বিচার প্রাপ্তিতে সহায়তা করছে।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্যানেলভুক্ত আইনজীবীগণ যাতে মানবাধিকার সুরক্ষায় অর্পিত দায়িত্ব এবং করণীয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারেন সেলক্ষ্যে ১৮ নভেম্বর, ২০২৩ তারিখ সকাল ১০.০০ টায় কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ‘মানবাধিকার সুরক্ষায় প্যানেল আইনহজীবীগণের ভূমিকা শীর্ষক কর্মশালা’ অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মাননীয় প্রধান বিচারপতি জনাব ওবায়দুল হাসান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞ অ্যাটর্নি জেনারেল জনাব আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন, সভাপতিত্ব করেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যান জনাব ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ, স্বাগত বক্তব্য রাখেন কমিশনের মাননীয় সার্বক্ষণিক সদস্য মোঃ সেলিম রেজা। মাননীয় প্রধান বিচারপতি উক্ত কর্মশালার উদ্বোধন করেন এবং প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মানবাধিকারের লঙ্ঘন হয়েছিল ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা,জাতীয় ৪ নেতার হত্যা এবং এই হত্যাকাণ্ডের খুনিদের বিচারের আওতায়

জানান। তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক নেতা, পুলিশ সবার মানবাধিকার আছে। অতিরিক্ত বল প্রয়োগ আন্দোলনকারী পুলিশ কারোরই উচিত নয়। একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হলে কোনদিন মানুষ একটি সুন্দর সমাজ পাবেনা।

কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যান ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, “মানবাধিকার সুরক্ষা, উন্নয়ন ও সুসংহত করণের লক্ষ্যে এবং ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে আইনগত সহায়তা প্রদানে কমিশন প্যানেল আইনজীবী নিয়োগ দিয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের গুরুত্ব বিবেচনায় প্যানেল আইনজীবীগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে মর্মে কমিশন দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে। অসহায়, নিপীড়িত মানুষ যেমন নিগৃহীত নারী, অসহায় মা আইনের দুয়ারে গিয়ে কাজ করতে পারেনা। তাদের ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণে প্যানেল আইনজীবীগণ অত্যন্ত নিষ্ঠা, সততা, দায়বদ্ধতা ও সর্বোচ্চ সংবেদনশীলতার মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। তিনি আরও বলেন, কমিশন সরকারি নয়। স্বাধীনভাবে কাজ করে। গণমাধ্যমের প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় কমিশন গৃহীত খবর প্রচার করার আহবান জানান। এতে জানলে মানুষ জানবে প্রতিকার পাবে।

বিজ্ঞ অ্যাটর্নি জেনারেল জনাব আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন বলেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সরকারের সংগঠন নয় প্রমাণ করে দিয়েছে।

যেমন কমিশন পুলিশের গুলিতে আহত লিমনকে আদালতে তার অধিকার আদায় করে দিয়েছিল। সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়ার জন্য কমিশনকে সাধুবাদ জানান তিনি। তিনি বলেন, আর্থিক অসচ্ছলতার কারনে অনেকেই আদালতে আসতে পারে না।

এরকম জনগোষ্ঠীসহ গৃহকর্মী, মানবপাচারের শিকার ব্যক্তিদের ন্যায়বিচার প্রাপ্তিতে সহায়তায় আইনজীবীদের কাজ করার আহবান জানান তিনি।

উদ্বোধনী পর্বের পর প্যানেল আইনজীবীগণের মানবাধিকার সুরক্ষায় করণীয় সংক্রান্ত দুটি ওয়ার্কিং সেশন মডারেট করেন।

কমিশনের মাননীয় সার্বক্ষণিক সদস্য মোঃ সেলিম রেজা এবং পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) মোঃ আশরাফুল আলম। সমাপনী সেশনে কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যান বিজ্ঞ প্যানেল আইনজীবীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর প্রদান করেন।

July 2024
S S M T W T F
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031